আপনি কি প্রথম বিমান ভ্রমণ করছেন? হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হয়ে প্রথমবারের মত যারা দেশের বাইরে যাচ্ছেন, বিশেষ করে তাদের জন্যই এই পোস্ট। বিমানবন্দর দেশের অন্যতম আন্তর্জাতিক স্থাপনা এবং দেশের প্রধান গেটওয়ে। আন্তর্জাতিক যাতায়াতের প্রধানতম মাধ্যম হওয়ায় বিমানবন্দরে বেশ কিছু আনুষ্ঠানিকতা পার হতে হয়, যা প্রথমবার বিমানবন্দর ব্যবহারকারী যাত্রীগণ সহজে বুঝে উঠতে পারেন না। আপনি যদি প্রথমবার বিমান ভ্রমনকারী হয়ে থাকেন, তবে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসা থেকে শুরু করে বিমান উড্ডয়নের পূর্ব পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকতাগুলো কি কি, তা আমরা আপনার সুবিধার্থে পর্যায়ক্রমে বর্ণনা করবো।

১. চেক ইন

  • যে কোন এয়ারলাইন্সে যাত্রী হয়ে বিমানবন্দরে আসার ক্ষেত্রে অবশ্যই পর্যাপ্ত সময় হাতে নিয়ে আসবেন। প্রায় প্রতিটি এয়ারলাইন্স বিমান উড্ডয়ন সময়ের কমবেশী তিন ঘন্টা আগে চেক ইন শুরু করে। সুতরাং উড্ডয়নের তিন ঘন্টা আগে বিমানবন্দরে পৌঁছানোই উত্তম।
  • বিমানবন্দরের বহির্গমন টার্মিনালে মোট ছয়টি প্রবেশ গেট রয়েছে এবং চেক ইন কাউন্টার এর অবস্থানভেদে গেট নম্বর থাকতে পারে। চেক ইন কাউন্টার নম্বর অনুযায়ী গেট দিয়ে প্রবেশ করলে আপনি অযথা পরিশ্রম, সময় দুটোই বাঁচাতে পারেন।
  • যে গেট দিয়েই প্রবেশ করুন না কেন, আপনার হাত ব্যাগ ও চেক ইন লাগেজ (বড় ব্যাগ) নিরাপত্তা তল্লাশীর জন্য স্ক্যানারে দিন। পাশাপাশি আপনার প্রাথমিক শরীর তল্লাশি করবেন নিরাপত্তা কর্মী। আপনার সাথে থাকা সকল মালামাল স্ক্যানিং করিয়ে নিরাপত্তা ট্যাগ লাগানো হয়েছে কিনা, তা নিশ্চিত হয়ে নিন। নিরাপত্তা ট্যাগ লাগানোর পর আপনার চেক ইন লাগেজের জিনিসপত্র পরিবর্তনের সুযোগ নাও পেতে পারেন, তাই ট্যাগ লাগানোর আগেই তা করে নেওয়া উচিত।
  • এরপর আপনি যে এয়ারলাইন্সে ভ্রমণ করছেন, সংশ্লিষ্ট এয়ারলাইন্স এর চেক ইন কাউন্টারে আপনার বিমান টিকেট ও পাসপোর্ট প্রদর্শন করুন, তারা আপনার চেক ইন লাগেজ নিয়ে প্রতিটি লাগেজের জন্য একটি করে ট্যাগ দেবেন, তা অত্যন্ত যত্নের সাথে সংরক্ষণ করুন। গন্তব্যস্থলে পৌঁছার পর লাগেজ দাবী করার সময় এ ট্যাগ অবশ্যই দেখাতে হবে। বিমান টিকেট করার সময় জেনে নেবেন আপনি মোট কত কেজি মালামাল সাথে নিতে পারবেন। নির্ধারিত সীমার বেশি ওজনের মালামাল যাতে না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখা উচিত।
  • চেক ইন কাউন্টারে আপনাকে বিমানে ওঠার বোর্ডিং পাস দেওয়া হবে। বোর্ডিং পাস যত্নের সাথে এমনভাবে সংরক্ষণ করুন যাতে কোথাও চাওয়া মাত্র সহজে দেখানো সম্ভব হয়। আপনার যাত্রাপথে যদি কোথাও বিমান পরিবর্তন করতে হয়, তবে চেক ইন কাউন্টার হতে নিশ্চিত হয়ে নিন পরবর্তী বিমানে ওঠার বোর্ডিং পাস দেওয়া হয়েছে কিনা।

২. ইমিগ্রেশন

  • চেক ইন শেষ করার পর এবার আপনি ইমিগ্রেশন আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করবেন। এ এলাকায় যাত্রী ব্যতিত আর কারো প্রবেশের সুযোগ নেই। সুতরাং আপনার সাথে কনকর্স হল পর্যন্ত আসা আত্মীয় স্বজন কিংবা বন্ধু বান্ধবের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে নিন। ইমিগ্রেশন কাউন্টারে প্রবেশের পূর্বে আপনি বহির্গমন কার্ড পূরণ করেছেন কিনা নিশ্চিত করুন। চেক ইন কাউন্টারে প্রবেশের পূর্বেই বিনামূল্যে বহির্গমন কার্ড পূরণের ব্যবস্থা রয়েছে, তাদের সহযোগিতা নিতে পারেন।
  • ইমিগ্রেশন এলাকায় প্রবেশের সময় আপনার পাসপোর্ট, বোর্ডিং পাস ও বহির্গমন কার্ড গেটে থাকা ইমিগ্রেশন পুলিশ ও নিরাপত্তাকর্মীকে প্রদর্শন করুন।
  • ইমিগ্রেশন কাউন্টারে সুশৃঙ্খলভাবে ইমিগ্রেশন কার্যক্রম সম্পন্ন করার জন্য নির্ধারিত লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করুন। আপনার পালা আসলে পাসপোর্ট, বোর্ডিং পাস সহ ইমিগ্রেশন অফিসারের সম্মুখীন হোন। তারা আপনার ছবি তুলে রাখবেন এবং ইমিগ্রেশন শেষে পাসপোর্টে বহির্গ্মন সীল মেরে পাসপোর্ট ও বোর্ডিং পাস ফেরত দেবেন। পাসপোর্ট হাতে নিয়ে তাতে এই সীলটি দেওয়া হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত হয়ে নিন। ইমিগ্রেশন কাউন্টার ত্যাগ করার সময় পুলিশ আপনার এ সীল নেয়া আছে কিনা তা নিশ্চিত হয়ে আপনাকে বোর্ডিং এলাকায় প্রবেশের সুযোগ দেবেন।

৩. বোর্ডিং

  • এবার বিমানে ওঠার (বোর্ডিং) জন্য এবার অপেক্ষা করুন। এ এলাকায় বেশ কয়েকটি ডিসপ্লে রয়েছে যাতে আপনার গন্তব্য অনুযায়ী কোন এয়ারলাইন্সের জন্য কত নম্বর বোর্ডিং ব্রীজে যেতে হবে তা উল্লেখ করা থাকে। এছাড়াও বোর্ডিং কার্যক্রম শুরু হয়েছে কিনা তাও এতে উল্লেখ করা থাকে। বোর্ডিং শুরু হয়ে থাকলে নির্ধারিত বোর্ডিং ব্রীজ এলাকায় অগ্রসর হতে পারেন। এই এলাকায় আপনি চাইলে বৈদেশিক মুদ্রা ক্রয় করতে পারেন।
  • বোর্ডিং ব্রীজ এলাকায় আপনাকে শেষবারের মতো পাসপোর্ট, বোর্ডিং পাস পরীক্ষাসহ পুঙ্খানুপুঙ্খ তল্লাশীর সম্মুখীন হতে হবে (আইএনএস চেকিং)। আইএনএস চেকিং শেষে আপনাকে কিছু সময় বোর্ডিং লাউঞ্জে অপেক্ষা করতে হতে পারে। আইএনএস চেকিং এ যে সকল জিনিস আপনার হাত ব্যাগ এ রাখতে পারবেন না, তা জানতে পড়ুন এখানে
  • বোর্ডিং শুরু হলে বিমানের দরজা খুলে দেওয়া হবে এবং এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তাগণ যাত্রীদের বোর্ডিং লাউঞ্জ থেকে বিমানে আরোহনের জন্য আহবান করবেন।
  • বিমানে ওঠার সময় বোর্ডিং পাসের নির্ধারিত অংশ বিমান ক্রুকে প্রদর্শন করতে হবে এবং তিনি আপনাকে আপনার আসন দেখিয়ে দেবেন।
  • আপনার হাতে থাকা হাত ব্যাগটি মাথার ওপর বাঙ্কে রাখবেন। সাথে ছোট ব্যাগ বা ল্যাপটপ থাকলে তা আপনার সামনের সীটের নিচের ফাঁকা যায়গায় রাখতে পারেন।
  • এবার সীট বেল্ট বেঁধে নেওয়ার পালা। বিমানের ক্রু’গণ কিভাবে সীট বেল্ট বাঁধতে হয় তা দেখিয়ে দেবেন।
  • সীট বেল্ট বাধা হয়ে গেলে এবার বিমান উড্ডয়নের জন্য অপেক্ষা করুন।

ভালো লাগা ছড়িয়ে দিন!
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •